শিরোনামঃ
আইডিয়াল ট্রাস্ট পিইসি মেধাবৃত্তি পেলেন রাফাত নূর হাসনা রাফিপ্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীককে অপহরণের চেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধনচকরিয়া থানা বিজয়দিবস ব্যাডমিন্টন টূর্ণামেন্টে চ্যাম্পিয়ন মতিউল-ইরফান ও রানার্সআপ আরেফিন-পিয়াসচকরিয়ায় ইউসিবি’র ‘সিআরএম’ উদ্বোধনখুরুশকুল ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি প্রার্থী সাবেক ছাত্রনেতা মো: রিয়াদঅনুপ্রবেশের দায়ে সেন্টমার্টিনদ্বীপ থেকে ১৬ মিয়ানমার নাগরিক আটকচবি ছাত্রলীগের একাংশ বিজয় এর পক্ষ থেকে নবনিযুক্ত ভিসিকে ফুলেল শুভেচ্ছাএবারও রাষ্ট্রীয় মর্যাদার সম্মাননা পেলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ি আতিকুল ইসলামটেকনাফে“ঘূর্ণিঝড় বুলবুল’মোকাবেলায় সব আশ্রয় কেন্দ্র খোলা রাখার নির্দেশটেক্সটাইল ভোকেশনাল ইন্সটিটিউটের ১যুগ পূর্তি আহ্বায়ক কমিটির অনুমোদনভারত থেকে বাংলাদেশে প্রবেশকালে রোহিঙ্গা তরুণী আটকঈদগাঁওতে বর্ণাঢ্য আয়োজনে যুবদলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিতচকরিয়ায় ঘর নির্মাণ করতে চাঁদা না দেয়ায় দূর্বৃত্তের হামলায় নিহত-১, নারীসহ আহত-৬, আটক-৩কুতুবদিয়া চ্যানেলের মগনামা পয়েন্টে ৯টি ড্রেজার মেশিন বসিয়ে অবৈধ উপায়ে বালি উত্তোলন করছে এস আলম গ্রæপ!কক্সবাজার সদর খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ আটক-২
porno izle izmir escort sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam inönü üniversitesi taban puanları

জাতিসংঘের জেআরপি প্রণয়ন এবং রোহিঙ্গা ত্রাণ কার্যক্রমে হতাশ স্থানীয় এনজিও

CCNF-Meting-Pic-01.jpg

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি::রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় জয়েন্ট রেসপন্স প্ল্যানিং (জেআরপি) প্রণয়ন এবং রোহিঙ্গা ত্রাণ কর্মসূচি সমন্বয় প্রক্রিয়ায় জাতিসংঘের বর্তমান ভূমিকায় হতাশা প্রকাশ করেছে স্থানীয় এনজিও এবং সুশীল সমাজ। রোহিঙ্গা রেসপন্স এন্ড গ্রান্ডবারগেন কমিটমেন্ট: এইড ট্রান্সপারেন্সি এন্ড সলিডারিটি এপ্রোচ শীর্ষক আলোচনা সভায় এ হতাশা প্রকাশ করা হয়। আলোচনা সভায় আয়োজকদের পক্ষ থেকে রোহিঙ্গা ত্রাণ কর্মসূচির সকল পর্যায়ে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা এবং গ্রান্ডবারগেন প্রতিশ্রুতির আলোকে জাতিসংঘের সকল প্রক্রিয়ায় স্থানীয়দের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার দাবি জানানো হয়। রোববার (২৫ নভেম্বর) কক্সবাজার শহরের কলাতলীর এক হোটেলে ৪২টি স্থানীয়, দেশীয় এনজিও এবং সুশীল সমাজ সংগঠনের নেটওয়ার্ক কক্সবাজার এনজিও এন্ড সিএসও ফোরাম (সিসিএনএফ) আয়োজিত এবং অক্সফামের সহায়তায় উক্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
আলোচনা সভায় এনজিও এবং সুশীল সমাজ নেতৃবৃন্দ বলেন, জাতিসংঘ অঙ্গসংস্থা গুলো এই পর্যন্ত যে ৬৮২ মিলিয়ন ডলার তহবিল পেয়েছে,এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক এনজিও যে অর্থ সাহায্য পেয়েছে- সেগুলোর প্রকাশ্য স্বচ্ছতা বা জবাবদিহিতা এবং সু-সমন্বয়ের অভাব রয়েছে। অর্থ সাহায্য কমে যাওয়ার সম্ভাব্য ভবিষ্যৎ পরিস্থিতি মোকাবেলায় তাঁরা ২০১৮ সালের জেআরপি’র পূর্ণ পর্যালোচনা এবং ভবিষ্যতে সকল অর্থ সহায়তার স্বচ্ছতা নিশ্চিত করার দাবী জানান।
সিসিএনএফ কো-চেয়ার আবু মুর্শেদ চৌধুরী এবং রেজাউল করিম চৌধুরীর সঞ্চালনায় আনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার আবুল কালাম। এতে বক্তব্য রাখেন, ইন্টার-সেক্টর কো-অর্ডিনেশন গ্রুপ (আইএসজি)র উর্ধতন পরামর্শক আনিকা সুডল্যান্ড এবং পরামর্শক বারস মারগো, অক্সফাম ইন্টারন্যাশনালের প্রতিনিধি এবং গ্লোবাল লোকালাইজেশন ওয়ার্কিং গ্রুপের সদস্য অনিতা কাট্টাখুজি, ইউএনএইচসিআর এর সিনিয়র অপারেশন ম্যানেজার হিনাকো টোকি। আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধ হিসেবে রোহিঙ্গা ত্রাণ কর্মসূচিতে স্থানীয়কণের উপর পরিচালিত একটি জরিপের ফলাফল উপস্থাপন করেন কোস্ট ট্রাস্টের মো: মজিবুল হক মনির।

আবু মুর্শেদ চৌধুরী ও রেজাউল করিম চৌধুরীর পৃথক উপস্থাপনায় উক্ত আলোচনা সভায়, রোহিঙ্গা ত্রাণ কর্মসূচিতে ১২৯৬ জন বিদেশির কাজ করা এবং দৈনিক প্রায় ৫৫০টি গাড়ি ব্যবহারের যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলা হয়। প্রত্যাবাসনের আগ পর্যন্ত রোহিঙ্গাদের জন্য যথাসম্ভব মানব মর্যাদা নিশ্চিত করতে পরিচালিত ত্রাণ কর্মসূচি সমন্বয়ে যোগাযোগের জন্য বাংলা ভাষার ব্যবহার, স্থানীয় এনজিও এবং সুশীল সমাজের অধিকতর অংশগ্রহণ, সমন্বয় এবং পরিকল্পনার প্রক্রিয়ায় স্থানীয় সরকারের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার দাবী জানানো হয়।

মূল বক্তব্য উপস্থাপনা কালে কোস্ট ট্রাস্টের মুজিবুল হক মনির বলেন, জেআরপি ২০১৮ বাবদে এ পর্যন্ত প্রাপ্ত তহবিল অনুযায়ী রোহিঙ্গাদের মাথাপিছু প্রায় ৫৭ হাজার টাকা এসেছে। প্রশ্ন হলো, এর কত শতাংশ মাথাপিছু ব্যয় হয়েছে?

শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার আবুল কালাম বলেন, রোহিঙ্গাদের কী প্রয়োজন তার কল্পিত তালিকা বানালে হবেনা। তৃণমূল থেকে প্রকৃত চাহিদা তুলে আনার জন্য বটম-আপ এপ্রোচে আমাদের কাজ করতে হবে। চুক্তি অনুযায়ী রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের জন্য ভৌত অবকাঠামো সহ সকল প্রকার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছিল। তবে প্রত্যাবাসনের জন্য প্রথম থেকেই সরকারের নীতি ছিল ‘স্বেচ্ছামূলক প্রত্যাবাসন’। মিয়ানমারের বর্তমান পরিস্থীতির আলোকে স্বেচ্ছায় ফিরে যেতে রাজি হলে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন করা হবে। যেহেতু এখনো পর্যন্ত কোনো রোহিঙ্গা পরিবার স্বেচ্ছায় ফিরে যেতে রাজি হয়নি। বাংলাদেশ সরকার তাদের উপর কোনো বলপ্রয়োগ করেনি।
সিসিএনএফ কো-চেয়ার আবু মুর্শেদ চৌধুরী বলেন, জেআরপি ২০১৮ এর একটি পূর্ণ এবং গণ পর্যালোচনা প্রয়োজন। এক্ষেত্রে স্থানীয়করণের প্রতিশ্রুতি গুলো খুব কমই পূরণ করা হয়েছে। জেআরপি ২০১৯ এ বিষয়গুলো বিবেচনা করতে হবে। সরকারের কাছে ত্রাণ কর্মসূচির পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ থাকতে হবে। রোহিঙ্গাদের প্রয়োজন যাচাইয়ের ভিত্তিতে একটি অংশগ্রহণমূলক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ত্রাণ কর্মসূচির পরিকল্পনা নিতে হবে।
আইএসসিজি’র উর্ধতন পরামর্শক আনিকা সুডল্যান্ড বলেন, ২০১৯ সালের জেআরপি প্রণয়নের জন্য আমরা বাংলাদেশ সরকারের নেতৃত্বে সকল পক্ষকে নিয়ে কাজ করতে চাই, যাতে সবাই জানতে পারে সবাই কী করছে। জেআরপি ২০১৮ এর প্রস্তাবিত তহবিলের এখন পর্যন্ত ৭২% তহবিল সংগৃহীত হয়েছে। রোহিঙ্গাদের বোঝা মনে না করে এর অর্থনৈতিক সম্ভাবনার বিষয়টিও আমাদের বিবেচনায় রাখতে হবে।
অক্সফাম ইন্টারন্যাশনাল প্রতিনিধি এবং গ্লোবাল লোকালাইজেশন ওয়ার্কিং গ্রুপের সদস্য অনিতা কাট্টাখুজি বলেন, গ্রান্ডবারগেইন প্রতিশ্রুতির মূল বিষয়গুলো বোঝার ব্যাপারে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর এখনও সীমাবদ্ধতা পরিলক্ষিত হচ্ছে। স্থানীয় সংগঠন গুলো যতটা বোঝেন, তারা ততটা বোঝেননা। সিসিএনএফ থেকে এ বিষয়ে যে ১৮ দফা দাবি পেশ করা হয়েছে, আমি মনে করি, আন্তর্জাতিক সংস্থা ও জাতিসংঘের সংস্থা গুলোর উচিত এক সাথে বসে সেগুলো পর্যালোচনা করা এবং এর আলোকে স্থানীয়করণের একটি রোডম্যাপ প্রণয়ন করা উচিত।
কোস্ট ট্রাস্টের নির্বাহী পরিচালক ও সিসিএনএফ এর কো-চেয়ার রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, আমরা অনেকদিন ধরেই স্থানীয়করন নিয়ে কথা বলে আসছি। কিছু অগ্রগতি ইতিমধ্যে হয়েছে। আশাকরি তৃণমূল থেকে আমরা যেসব বক্তব্য তুলে ধরেছি তা আন্তর্জাতিক সংস্থা সমূহ বিবেচনায় নিবেন।
ইউএনএইচসিআর এর সিনিয়র অপারেশন ম্যানেজার হিনাকো টোকি বলেন, স্থানীয় করণের জন্য স্থানীয় এনজিওদের সাথে অংশীদারীত্বের পাশাপাশি সংস্থার ক্রয়ের সিংহভাগ স্থানীয়ভাবে করতে হবে। তাহলে স্থানীয় অর্থনীতিতে তার ইতিবাচক প্রভাব পড়বে।
সভায় জনপ্রতিনিধি, সরকারী-বেসরকারী কর্মকর্তা, উন্নয়ন কর্মী, গণমাধ্যমকর্মী সহ নানা শ্রেনী পেশার দেড় শতাধিক প্রতিনিধি অংশগ্রহন করেন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top
alsancak escort bornova escort gaziemir escort izmir escort buca escort karsiyaka escort cesme escort ucyol escort gaziemir escort mavisehir escort buca escort izmir escort alsancak escort manisa escort buca escort buca escort bornova escort gaziemir escort alsancak escort karsiyaka escort bornova escort gaziemir escort buca escort porno