শিরোনামঃ
কক্সবাজারে সেনা টহল জোরদার:সেনাবাহিনীর আহ্বানে সাধারণ মানুষের অভূতপূর্ব সাড়ানিজ বেতনের অর্থে অসহায় ৫ শ পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন কউক চেয়ারম্যানকক্সবাজারেমাঠে নেমেছে সেনাবাহিনীকক্সবাজার সী-সাইড হাসপাতালে ৫০ হাজার টাকা জরিমানাকক্সবাজারে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা কাজী রাসেল মহিলাসহ আটকআটকের ১৪ দিনেও থানা হাজতে টমটম চালক আয়ুবঃ ক্রসফায়ারের নামে টাকা আদায়ের অভিযোগটেকনাফ সীমান্তে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মানব পাচারকারী নিহতমহান শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আজআগামী দেড় মাসের মধ্যে কক্সবাজার শহরেরর প্রধান সড়কের কাজ শুরু করা হবে-লে: কর্নেল (অব.) ফোরকান আহমদহ্নীলায় অবৈধভাবে মাটি পাচারের ৬টি ডাম্পার ট্রাক জব্দশিক্ষায় আলোকিত মানুষেরাই যুগযুগ ধরে বেঁচে থাকে-লে.কর্ণেল ফোরকান আহমদ”বিদেশি পর্যটকদের নিকট সৈকতকে তুলে ধরতে”ওয়েলকাম টু সার্ফিং সিটি”ভাস্কর্য স্থাপন করা হবে”টেকনাফে র‍্যাবের অভিযানে ইয়াবাসহ জালাল আটকটেকনাফে র‌্যাবের অভিযানে ইয়াবা কোহিনুর আটকউখিয়ায় বিজিবি’র সঙ্গে‘বন্দুকযুদ্ধে’ইয়াবাকারবারি নিহত
porno izle izmir escort sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam inönü üniversitesi taban puanları

কক্সবাজারের বিনোদন স্পট ঘুরে গন্তব্যে ফিরতে বাস কাউন্টারে পর্যটকের ভীড়

Pic-Cox-08.06.2019.jpg

এম জাহেদ চৌধুরী::মুসলিম সম্প্রদায়ের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর। সেই মহাখুশির দিন অতিবাহিত হয়েছে তিনদিন পূর্বে। এরপরও আনন্দের আমেজ অব্যাহত রয়েছে। বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করে বিশ্বের অন্যতম কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতসহ জেলার বিভিন্ন বিনোদন স্পট ভ্রমন করেছেন লাখো পর্যটক। আজ রবিবার খুলছে সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্টান। তাই শনিবার সন্ধার পর থেকে গন্তব্যে ফিরতে পর্যটকরা বিভিন্ন বাস কাউন্টারে ভিড় করে। এবার ঈদের ছুটিতে কক্সবাজারের কোথাও পর্যটকরা অনাকাংখিত ঘটনার শিকার হয়নি প্রশাসনের কড়া নজরদারীর কারণে।
ঈদুল ফিতরের ছুটি কাটাতে সাগর সৈকতে ভিড় করে লাখো পর্যটক। সাগরের নীল জলরাশিতে উচ্ছ্বাসে মাতোয়ারা ছিল আগত পর্যটকরা। থেমে থেমে চলা বৃষ্টি আগত পর্যটকদের উচ্ছ্বাসে ছেদ ঘটাতে পারেনি।
সরজমিন ঘুরে দেখা গেছে, ঈদের ছুটি কাটাতে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারে ভিড় করে লাখো পর্যটক। বৈরি আবহাওয়া আর থেমে থেমে বৃষ্টি উপেক্ষা করে সৈকতের সব পয়েন্টে ছিল পর্যটকে ঠাসা। দীর্ঘদিন প্রচন্ড গরম থাকার পর এ বৃষ্টি পর্যটকের তেমন কোন সমস্যা হয়নি। বরং বৃষ্টিতে অনেকে বাড়তি আনন্দও পেয়েছে। সমুদ্র সৈকত ছাড়াও ইনানীর পাথুরে সৈকত, পর্যটন স্পট দরিয়ানগর, হিমছড়ি, ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক, রামুর বৌদ্ধ মন্দির, সেন্টমার্টিন, খুটাখালীর ন্যাশনাল পার্ক, মগনামা ঘাটও পর্যটকে মুখরিত ছিল। নগর জীবনের যান্ত্রিকতা থেকে দূরে নীল সাগরের সুনীল জলরাশিতে অবিরত ঢেউয়ের মাঝে বাধভাঙ্গা আনন্দে মেতেছেন ভ্রমণ পিপাসুরা। তাদের উল্লাসে যেন মুখরিত বিশ্বের দ্বীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত। দেশের প্রথম চকরিয়ার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্কে এসে পর্যটকরা দেশী-বিদেশী পশুপাখি দেখে আলাদা বিনোদনে শিহরিত হয়।
কক্সবাজার ঘুরতে আসা পর্যটক রাশেদ, মনিকা, সোহাগ ও শিল্পী রানী বলেন, ঈদের টানা ছুটিতে কক্সবাজার এসে খুব ভালো লাগছে। বৃষ্টি আর সাগর আমাদের একাকার করে দিচ্ছে। ঈদকে খুব উপভোগ করেছি। জিয়াউদ্দীন ফারুক বলেন, স্ত্রী সন্তান নিয়ে সাফারী পার্ক ঘুরে বিনোদনের পাশাপাশি জীববৈচিত্রের নতুন অভিজ্ঞতা সঞ্চয় হয়েছে। এসএম হানিফ বলেন, উপকূলীয় উপজেলা পেকুয়া মগনামাঘাটে একঝাঁক তরুণ যুবকের স্বেচ্ছাশ্রম ও বিনিয়োগে নির্মিত রংবেরংয়ের ব্লক টানা চারদিন ছিল পর্যটকদের দখলে। এই ঘাটটি সরকারী খরচে পর্যটকবান্ধব করে গড়ে তোলার দাবী জানিয়েছেন তিনি।
কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো.ইকবাল হোসাইন বলেন, ঈদের ছুটিতে পর্যটকরা স্বাচ্ছন্দে ভ্রমণ করতে পেরেছে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়ায়। কক্সবাজারের প্রতিটি পর্যটন স্পটে সাদা পোশাকের পুলিশ মোতায়েন করা হয়।
তিনি আরো বলেন, কক্সবাজারের ৫ শতাধিক হোটেল মোটেল ও গেষ্ট হাউজে ৩ লক্ষাধিক পর্যটকের ধারণ ক্ষমতা রয়েছে। পর্যটকদের সমুদ্র ¯œানে নিরাপত্তা দিতে পুলিশের পাশাপাশি ৩টি বেসরকারি লাইফ গার্ড সংস্থার অর্ধশতাধিক প্রশিক্ষিত লাইফ গার্ড কর্মী নিয়োজিত রয়েছে।
কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো.কামাল হোসেন জানিয়েছেন, আগত পর্যটকদের হয়রানি রোধে তিনটি ভ্রাম্যমান আদালতের টিম সৈকত ও আশপাশের এলাকায় কাজ করছে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top