শিরোনামঃ
হাজীপাড়া গোল্ডকাপ ফুটবল টূর্ণামেন্ট শুরু হচ্ছে ২৩ আগস্ট,নিবন্ধনের আহবানতারেকের সর্বোচ্চ শাস্তির জন্য উচ্চ আদালতে যাব: কাদেরএবারও অনিশ্চয়তার মুখে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়াএস আই প্রদীপের চট্টগ্রাম রেঞ্জের সেরা পুরস্কার গ্রহনপেকুয়ায় বন্দুকযুদ্ধে উপকূলের শীর্ষ জলদস্যু বাদশা নিহত,অস্ত্র ও গুলি উদ্ধারশেখ হাসিনার ছাত্রলীগে জামায়াতি আঁচড়!২২ আগস্ট রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন চূড়ান্ত হয়নিচকরিয়ায় হত্যা ডাকাতিসহ ডজন মামলার আসামী,শীর্ষ সন্ত্রাসী আলকোমাস গ্রেপ্তারকক্সবাজার সদর থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার- ৪২শিক্ষাবন্ধু উপাধিতে ভূষিত হলেন কক্সবাজার সিটি কলেজের অধ্যক্ষ ক্য থিং অংচকরিয়ায় ইয়াবাসহ যুবক গ্রেপ্তারকাশ্মীর সীমান্তে ভারতের গোলাবর্ষণ, দুই পাকিস্তানি নিহতটেকনাফে ভ্রাম্যমান আদালতে ১০ মাদকসেবির সাজামওদুদ একটা শয়তান: রাজ্জাকমুক্তি কক্সবাজার’র সভাপতি দুই দেশের নাগরিক!
porno izle izmir escort sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam inönü üniversitesi taban puanları

চকরিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় সাঈদীর সমর্থকদের কলাগাছ রোপন

51328987_1976523662395675_5604405560721014784_n.jpg

বার্তা পরিবেশক::আসন্ন চকরিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে সড়কের পাশে কলাগাছ রোপন করেছে সাঈদীর সমর্থকরা। রবিবার দুপুরে গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়টি প্রচার হওয়ার পর থেকে চকরিয়া পৌরশহরের প্রধান সড়কসহ পুরো উপজেলার অভ্যন্তরীণ সড়কের পাশে কলাগাছ রোপন করে প্রতিবাদ করছে চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি সাবেক কাউন্সিলর ফজলুল করিম সাঈদীর সমর্থকরা। সোমবার সারাদিন সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে উপজেলার পৌরশহরের চিরিঙ্গা জনতা মার্কেট থেকে থানা রাস্তার মাথা, ডুলহাজারা, খুটাখালী, বদরখালী, বরইতলী, পূর্ব বড় ভেওলা, কোনাখালী, বিএমচর, কাকারা, সুরাজপুর-মানিকপুর, কৈয়ারবিলসহ ১৮ ইউনিয়নের বিভিন্ন সড়কের দুইপাশে কলাাগাছ রোপন করা হয়েছে।
ফজলুল করিম সাঈদীর এক সমর্থক নাম প্রকাশ না করে বলেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী হলেও পুরো উপজেলায় সাঈদীর আলাদা ভোট ব্যাংক রয়েছে। সুষ্টু নির্বাচন হলে সাঈদী বিপুল ভোটে জয়ী হবেন। দলীয় প্রতিক না পাওয়ায় তার সমর্থকরা ক্ষুব্ধ হয়ে কলাগাছ রোপন করেছে।
উপজেলা পরিষদের নির্বাচনকে সামনে রেখে ডজন খানেক আওয়ামীলীগ নেতা চেয়ারম্যান পদে লড়তে কয়েক মাস ধরে মাঠে ময়দানে গণসংযোগ করে আসছিল। পরে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের নির্দেশনায় সমন্বয় সভা করে একক প্রার্থীর নাম পাঠাতে না পারলেও কেন্দ্রে তিনজনের নাম পাঠানো হয়। তারা হলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক চেয়ারম্যান গিয়াসউদ্দিন চৌধুরী, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি জেলা পরিষদের সাবেক প্যানেল চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম লিটু, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি ফজলুল করিম সাঈদী। পরে তিনজনের মধ্যে আওয়ামীলীগের নির্বাচনী বোর্ড গিয়াস উদ্দিন চৌধুরীকে দলীয় প্রতিক নৌকার প্রার্থী ঘোষনা করেন।
ফজুলল করিম সাঈদী বলেন, দলীয় মনোনয়ন না পেলেও আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করব। আমার ব্যক্তিগত ইমেজকে কাজে লাগিয়ে আমি নির্বাচনে লড়ব। রাজনীতির হাতেখড়ি ছাত্রজীবনে হলেও সবসময় কর্মী ও জনবান্ধব ছিলাম। এখনো সাধারণ জনগণ থেকে রাজনৈতিক কর্মীরা আমার সাথে রয়েছে। ২০১০ সালে পৌর নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে ৫হাজার ৬শত ভোট পেয়েছিলাম।
উল্লেখ্য রবিবার দুপুরে আওয়ামীলীগের নির্বাচনী মনোনয়ন বোর্ড দলীয় প্রার্থী দিয়েছেন গিয়াস উদ্দিন চৌধুরীকে । ফলে আগামী ১৮ মার্চ অনুষ্টিতব্য উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতিক নিয়ে লড়বেন তিনি।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top
alsancak escort bornova escort gaziemir escort izmir escort buca escort karsiyaka escort cesme escort ucyol escort gaziemir escort mavisehir escort buca escort izmir escort alsancak escort manisa escort buca escort buca escort bornova escort gaziemir escort alsancak escort karsiyaka escort bornova escort gaziemir escort buca escort porno