শিরোনামঃ
আইডিয়াল ট্রাস্ট পিইসি মেধাবৃত্তি পেলেন রাফাত নূর হাসনা রাফিপ্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীককে অপহরণের চেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধনচকরিয়া থানা বিজয়দিবস ব্যাডমিন্টন টূর্ণামেন্টে চ্যাম্পিয়ন মতিউল-ইরফান ও রানার্সআপ আরেফিন-পিয়াসচকরিয়ায় ইউসিবি’র ‘সিআরএম’ উদ্বোধনখুরুশকুল ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি প্রার্থী সাবেক ছাত্রনেতা মো: রিয়াদঅনুপ্রবেশের দায়ে সেন্টমার্টিনদ্বীপ থেকে ১৬ মিয়ানমার নাগরিক আটকচবি ছাত্রলীগের একাংশ বিজয় এর পক্ষ থেকে নবনিযুক্ত ভিসিকে ফুলেল শুভেচ্ছাএবারও রাষ্ট্রীয় মর্যাদার সম্মাননা পেলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ি আতিকুল ইসলামটেকনাফে“ঘূর্ণিঝড় বুলবুল’মোকাবেলায় সব আশ্রয় কেন্দ্র খোলা রাখার নির্দেশটেক্সটাইল ভোকেশনাল ইন্সটিটিউটের ১যুগ পূর্তি আহ্বায়ক কমিটির অনুমোদনভারত থেকে বাংলাদেশে প্রবেশকালে রোহিঙ্গা তরুণী আটকঈদগাঁওতে বর্ণাঢ্য আয়োজনে যুবদলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিতচকরিয়ায় ঘর নির্মাণ করতে চাঁদা না দেয়ায় দূর্বৃত্তের হামলায় নিহত-১, নারীসহ আহত-৬, আটক-৩কুতুবদিয়া চ্যানেলের মগনামা পয়েন্টে ৯টি ড্রেজার মেশিন বসিয়ে অবৈধ উপায়ে বালি উত্তোলন করছে এস আলম গ্রæপ!কক্সবাজার সদর খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ আটক-২
porno izle izmir escort sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam inönü üniversitesi taban puanları

জিয়া স্মৃতি জাদুঘরকে ‘মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি জাদুঘর’ করার প্রস্তাব নওফেলের

Zia-museum.jpg

প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের নামে গড়ে তোলা ‘জিয়া স্মৃতি জাদুঘরকে’ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি জাদুঘরে রূপান্তরের জন মন্ত্রীসভার বৈঠকে প্রস্তাব এনেছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। খবর – সারাবাংলা
জাদুঘরটির অবস্থান চট্টগ্রাম নগরীর কোতোয়ালী থানার কাজির দেউড়ি এলাকায়।

চট্টগ্রাম-৯ (কোতোয়ালী-বাকলিয়া) আসনের সংসদ সদস্য হিসেবে নওফেলের এই প্রস্তাবে সমর্থন দিয়েছেন মন্ত্রীসভার প্রায় সব সদস্য। প্রস্তাবে নীতিগত সমর্থন এসেছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকেও।
সোমবার (১১ ফেব্রুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রীসভার বৈঠকে নওফেল এই প্রস্তাব দেন। এতে সমর্থন জানিয়ে বক্তব্য রাখেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী গাজী গোলাম দস্তগীর বীরপ্রতীক, ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহার উশৈসিং এবং প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমেদ।

সূত্রমতে, বৈঠকে উপমন্ত্রী নওফেল বলেন, ‘যে ভবনটিকে জিয়া স্মৃতি জাদুঘর বানানো হয়েছে, সেটি বৃটিশ আমলে নির্মিত। বৃটিশবিরোধী আন্দোলনের স্মৃতিবিজড়িত একটি ভবন এটি। একসময় সার্কিট হাউজ হিসেবে ব্যবহৃত হতো। এখানে মহান মুক্তিযুদ্ধের অনেক স্মৃতি জড়িয়ে আছে। ১৯৭১ সালে অনেক নিরীহ বাঙালি ও মুক্তিযোদ্ধা পাকিস্তানি সেনারা ধরে নিয়ে ওই ভবনে রেখে নির্যাতন করেছিল। সেখানে একটি ইলেকট্রিক চেয়ার ছিল। সেখানে বসিয়ে অকথ্য নির্যাতন করা হতো। অনেক মুক্তিযোদ্ধাকে সেখানে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। সবচেয়ে বড় কথা, চট্টগ্রামে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম পতাকা উত্তোলিত হয়েছে।’
তিনি বলেন, ‘জিয়াউর রহমান যখন রাষ্ট্রপতি ছিলেন, তখন এই সার্কিট হাউজে এসে মৃত্যুবরণ করেন। ১৯৯১ সালে তার স্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া ক্ষমতায় আসার পর সেটিকে আকস্মিকভাবে জিয়া স্মৃতি জাদুঘর হিসেবে রূপান্তর করেন, যা চট্টগ্রামবাসী এবং আপামর মুক্তিযোদ্ধারা মেনে নেননি। সেখানে জিয়াউর রহমানের কোনো স্মৃতি নেই। শুধু ১৯৭১ সালে কালুরঘাট বেতারকেন্দ্র থেকে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণাটি জিয়াউর রহমানের কণ্ঠে যে ট্রান্সমিটারের মাধ্যমে প্রচার হয়েছিল, সেটি এনে সেখানে রাখা হয়েছে। অথচ জিয়াউর রহমানের আগে একই ট্রান্সমিটার ব্যবহার করে এই ঘোষণা দিয়েছেন প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা এম এ হান্নান। তাহলে শুধু জিয়াউর রহমানের নামে কেন জাদুঘর হবে?’

নওফেল আরও বলেন, ‘জিয়াউর রহমান একজন অবৈধ ক্ষমতা দখলকারী। আদালতের রায়ে তিনি একজন অবৈধ সামরিক শাসক। তার নামে কেন একটি রাষ্ট্রীয় স্থাপনা এভাবে ব্যবহার করা হবে? তাছাড়া জিয়ার নামে স্থাপনা হওয়ায়, এই দর্শনীয় স্থানটিতে চট্টগ্রামের মানুষ যান না। অথচ এটিকে মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি জাদুঘর করে একটি সার্বজনীন প্রতিষ্ঠান হিসেবে রূপান্ত করলে এটি দেশের সম্পদে পরিণত হবে।’

মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সমন্বয় করে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়কে একটি প্রকল্প গ্রহণের অনুরোধ করেন মন্ত্রীসভার তরুণ সদস্য নওফেল।

নওফেলের বক্তব্যের পর মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক প্রথম তাকে সমর্থন জানিয়ে বক্তব্য রাখেন। তিনি এই বিষয়ে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয় থেকেও উদ্যোগ নেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন বলে সূত্র জানিয়েছে।

মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রীকে সমর্থন জানিয়ে পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী গাজী গোলাম দস্তগীর বীরপ্রতীক বলেন, ‘আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে জিয়া স্মৃতি জাদুঘরকে মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি জাদুঘরে রূপান্তরের প্রস্তাবে সমর্থন ব্যক্ত করছি।’

জানতে চাইলে মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, ‘আমি যে এলাকার সংসদ সদস্য, সেই এলাকায় এই জিয়া স্মৃতি জাদুঘর। সেটিকে মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি জাদুঘর হিসেবে রূপান্তরের দাবি আছে চট্টগ্রামবাসীর। এলাকার দায়িত্বপ্রাপ্ত জনগণের প্রতিনিধি হিসেবে আমার প্রস্তাব আমি মন্ত্রীসভায় তুলে ধরেছি। মাননীয়ন প্রধানমন্ত্রীও নীতিগতভাবে সমর্থন দিয়েছেন। আমি সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ে এই বিষয়ে চিঠি দেব, যাতে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সমন্বয় করে একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয় এবং কাজটি দ্রুত শুরু করা হয়।’

ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, ১৯১৩ সালে চট্টগ্রাম নগরীর কাজির দেউড়ি এলাকায় তৎকালীন বৃটিশ শাসকরা দৃষ্টিনন্দন ভবনটি নির্মাণ করে, যা পরে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজ হিসেবে রাষ্ট্রীয় অতিথিদের জন্য ব্যবহৃত হত।
১৯৮১ সালের ৩০ মে চট্টগ্রাম সফরে এসে সার্কিট হাউজের চার নম্বর কক্ষে উঠেছিলেন তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান। ভোরের দিকে এক সামরিক অভ্যুত্থানে তিনি নিহত হন। ওই বছরের ৩ জুন সার্কিট হাউসকে একটি জাদুঘরে রূপান্তরের জন্য সরকারি প্রস্তাব গৃহীত হয়।

এরপর ১৯৯১ সালে জিয়াউর রহমান স্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে বিএনপি রাষ্ট্রক্ষমতায় আসে। ১৯৯৩ সালের ৬ সেপ্টেম্বর সেই জাদুঘরের উদ্বোধন করা হয়। জাদুঘরে জিয়াউর রহমানের হত্যাকাণ্ডের নমুনা, ব্যক্তিগত সামগ্রী এবং স্বাধীনতা ঘোষণার ট্রান্সমিটারটি সংরক্ষিত আছে।

নওফেলের পিতা চট্টগ্রামের সাবেক মেয়র প্রয়াত এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীসহ আওয়ামী লীগ নেতা এবং মুক্তিযোদ্ধাদের কাছ থেকে বিভিন্নসময় ‘জিয়া স্মৃতি জাদুঘর’ নিয়ে কঠোর সমালোচনা এসেছিল। ইতিহাস বিকৃতির অভিযোগ এনে সেটি ভেঙ্গে ফেলারও দাবি উঠেছিল।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নওফেল প্রথমবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েই এই দাবি সামনে এনেছেন এবং মন্ত্রীসভায় পর্যন্ত নিয়ে গেলেন। এর আগে গত ২১ জানুয়ারি মন্ত্রীসভার প্রথম বৈঠকে নওফেল চট্টগ্রামে নির্মাণাধীন কর্ণফুলী টানেলকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ ‍মুজিবুর রহমানের নামে নামকরণের প্রস্তাব দিয়েছিলেন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top
alsancak escort bornova escort gaziemir escort izmir escort buca escort karsiyaka escort cesme escort ucyol escort gaziemir escort mavisehir escort buca escort izmir escort alsancak escort manisa escort buca escort buca escort bornova escort gaziemir escort alsancak escort karsiyaka escort bornova escort gaziemir escort buca escort porno